মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

খনিজ সম্পদ

সুন্দলপুর তেল/গ্যাস অনুসন্ধান কূপ খনন প্রকল্প

০১। প্রকল্পের নাম                             :সুন্দলপুর তেল/গ্যাস অনুসন্ধান কূপ খনন প্রকল্প।

০২। প্রকল্পের অনুমোদনের পর্যায়          :০৯ অক্টোবর ২০০৭ তারিখে বাপেক্স বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত।

২২ মে, ২০০৮ তারিখে ECNEC কর্তৃক অনুমোদিত হয়।

০৩। প্রকল্পের অবস্থান                      :গ্রামঃ শাহজাদপুর, ইউনিয়নঃ সিরাজপুর,

থানাঃ কোম্পানীগঞ্জ, জেলাঃ নোয়াখালী।

০৪। বাসত্মবায়নকাল                                    :জুলাই, ২০০৮ হতে জুন ২০১২।

০৫। প্রকল্প ব্যয়                              :স্থানীয় মুদ্রা          :১৮৮৮.১০ (লক্ষ টাকা)।

  বৈদেশিক মুদ্রা     :৫৪৭৬.৯০ (লক্ষ টাকা)।

               মোট            ঃ ৭৩৬৫.০০ (লক্ষ টাকা)।

 

০৬। প্রকল্পের উদ্দেশ্যে                      :নোয়াখালী জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার অর্ন্তগত সুন্দলপুর ভূ-গঠনে তেল/গ্যাস আবিস্কারের লক্ষ্যে আনুমানিক ৩৩০০ (±২০০) মিটার গভীরতা সম্পন্ন একটি কূপ খনন ও Well Testingকার্যক্রম সম্পন্ন করা।

 

০৭। প্রকল্পের অগ্রগতিঃ                      

                                     

১) সুন্দলপুর ভূ-গঠনে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা ও শাহজাদপুর গ্রামে গত ১৭/০৮/২০০৯ ইং তারিখে লোকেশন প্রদান, এর পর প্রয়োজনীয় ভূমি রিকুইজিশন করা হয়।

২) ভুমি উন্নয়ন করা হয়।

৩) রাস্তাঘাট তৈরী করা হয়।

৪) রিগ ফাউন্ডেশন, গোডাউন সহ প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মান করা হয়।

৫) কর্মকর্তা -কর্মচারীদের আবাসনের জন্য কেরাভ্যান তৈরী করা হয়।

৬) পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি হতে বিদ্যুৎ সংযোগ গ্রহণ করা হয়।

৭) বাখরাবাদ গ্যাস সিষ্টেম হতে কর্মকর্তা/ কর্মচারীদের আবাসনে ব্যবহারের জন্য গ্যাস সংযোগ গ্রহণ করা হয়।

৮) রিগ ও আনুষঙ্গিক যন্ত্রপাতি ইরেকশন ও কমিশনিং করা হয়।

৯) গত ২১/১২/২০১০ ইং তারিখে বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব বিগ্রেডিয়ার জেনারেল (অবঃ) মোহাম্মদ এনামুল হক আনুষ্ঠানিকভাবে কূপ খনন কাজ উদ্ধোধন করেন।

১০) 36''কূপ খনন ও 30''কেসিং করাসহ সিমেন্টেশন করা হয়েছে। 26'', 184 মিটার কূপ খনন শেষে 20''কেসিং রান করে সিমেন্টেশন কাজ করা হয়েছে।

১১) ১৭ ১/২'', ১২৩৮ মিটার কূপ খনন শেষে কেসিং রান করে সিমেন্টেশন করা হয়েছে।

১২) ১২ ১/২’’ হোল সেকশনে ২৩৬৫ মিটার গভীরতায় ৯ ৫/৮’’ কেসিং স্থাপন ও সিমেন্টিং করা হয়েছে।

১৩) ৮ ১/২'’’ হোল সেকশনে ৩২৯১ মিটার গভীরতায় কূপ খনন কাজ শেষে কেসিং ও সিমেন্টেশন কাজ করা হয়েছে।

 

১৪) সিমেন্ট প্লাগ করার সময় ৩০৪৪ মিটার থেকে ৩০৯২ মিটার পর্যন্ত পাইপ Stuckহয় এবং ফিশিং  অপারেশন এর মাধ্যমে উক্ত পাইপ উঠানো হয়।  

 

১৫) ৮ ১/২'' হোল সেকশনে ৩১৯৫ মিটার থেকে ৩২২০ মিটার ও ৩১১৮-৩১২১ মিটার পর্যন্ত  পারফরেশন করে ডিএসটি করা হয়। ওয়েল ফ্লো করেনি।

 

১৬) ৯ ৫/৮'' হোল সেকশনে ১৩৯৯ থেকে ১৪০২ পর্যন্ত পারফরেশন করে ডিএসটি করা হয় এবং ওয়েল ফ্লো করে যাহাতে প্রতিদিন ১০-১২ মিলিয়ণ ঘনফুট গ্যাস উৎপাদন করা যাবে বলে প্রতিয়মান হয়।

 

১৭) প্রোডাকশন টেষ্টিং শেষে গত ১৭-০৩-২০১২ ইং তারিখ হতে জাতীয় গ্রীড লাইনে প্রতিদিন প্রায় ১০ এমএমসিএফডি গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে।

 

 

 

০৮। প্রকল্পের আর্থিক অগ্রগতি             ঃ স্থানীয় মুদ্রা (রাজস্ব)                    ৩৩১.২৪৪৪৫ (লক্ষ টাকা)

(জুলাই ২০১১ হতে জুন-১২ পর্যন্ত)            মূলধন                                      ৮৫.৭১২৪৩ (লক্ষ টাকা)

   নগদ বৈদেশিক মুদ্রা (অন্যান্য)        (৮৭২.২৪৩২৭) (লক্ষ টাকা)      

    মোট                             ১২৮৯.২০০১৫ (লক্ষ টাকা)        

 

০৯। ডিপিপির বিপরীতে                      আর্থিক                           বাস্তব                               

অগ্রগতির শতকরা হার                      ১২৮৯.২০০১৫                   ১৭.৫০%

দেশে বিরাজমান জ্বালানী ঘাটতি মোকাবেলায় দ্রুততার সাথে গ্যাস উৎপাদন ও সঞ্চালন ক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে একক প্রতিষ্ঠান হিসেবে রাশিয়া ফেডারেশনের রাষ্ট্রীয় সংস্থা Gazpromকোম্পানী সহায়তায় বিভিন্ন গ্যাস ফিল্ডের ১০টি কূপ খনন (তিতাস ফিল্ডে ৪টি, রশিদপুর গ্যাস ফিল্ডে ১টি, সেমুতাং গ্যাস ফিল্ডে ১টি, বেগমগঞ্জ ফিল্ডে ১টি, সুন্দলপুর/শ্রীকাইল ফিল্ডে ১টি ও শাহবাজপুর ফিল্ডে ২টি) এবং আশুগঞ্জ ও এলেঙ্গায় ২টি কম্প্রেসর ষ্টেশন স্থাপনের প্রয়োজনীয় কার্যক্রম বিদ্যুৎ ও জ্বালানীর দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) আইন, ২০১০ এর অনুসরনে প্রক্রিয়াকরণের প্রয়োজনীয় উদ্যোগ ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেমক্রমে অনুরোধ কা হয়।

 

FIVE (05) WELLS OF BAPEX

২৩-১১-২০১০:    সেন্ট পিটার্সবার্গে বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং রাশিয়া ফেডারেশনের প্রধানমন্ত্রীর সহিত বাংলাদেশের                             তেল/গ্যাস উন্নয়নের বিষয়ে দ্বি-পাক্ষিক আলোচনা হয়।  

 

০১-০২-২০১১:   বাংলাদেশের তেল/গ্যাস উন্নয়নের বিষয়ে রাশিয়ার Gazprom EP International Investment B.V. প্রতিনিধির সাথে জ্বালানী উপদেষ্টার সভাপতিত্ত্বে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

০৭-০৮-২০১১:   বিদ্যুৎ ও জ্বালানীর দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) আইন -২০১০ এর আওতায় ১০ (দশ) টি কূপ খননের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

 

০৮-০৮-২০১১:   Gazpromকারিগরী ও বাণিজ্যিক প্রস্তাব পেট্রোবাংলা বরাবরে দাখিল করে।

 

১৪-০৮-২০১১:   বিশেষ বিধানের আওতায় দরপত্র প্রক্রিয়াকরণ কমিটি করিগরী উপ-কমিটির নিকট দরপত্র মূল্যায়নের নিমিত্তে প্রেরণ করে।

 

০৬-১০-২০১১:   Gazpromপ্রতিনিধির সাথে মন্ত্রণালয়ে দরপত্র প্রক্রিয়াকরণ কমিটি Contract Negotiationবিষয়ে সভা অনুষ্ঠিত হয়। 

 

১১-০৯-২০১১:    দরপত্র প্রক্রিয়াকরণ কমিটি দরপত্র মূল্যায়ন প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে দাখিল করে। 

 

২০-১০-২০১১:    Gazpromকর্তৃপক্ষ ৫% PGএবং ২% discountপ্রদান করে পত্র প্রেরণ করে।

 

২৩-১০-২০১১:   চুক্তিপত্র প্রস্ত্ততকরণের লক্ষ্যে পেট্রোবাংলা কর্তৃক কমিটি গঠন করে।

 

০৩-১১-২০১১:   পেট্রোবাংলা কর্তৃক গঠিত কমিটি এবং Gazpromএর কমিটি কর্তৃক যৌথভাবে খসড়া চুক্তিপত্র প্রস্ত্তত করে।  

 

২০-১২-২০১১:    Gazpromএর দাখিলকৃত কারিগরী ও বাণিজ্যিক প্রস্তাব Purchaseকমিটি কর্তৃক অনুমোদিত হয়।

 

১১-০১-২০১২:     Purchaseকমিটির অনুমোদনের পত্র জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়।

 

২০-০১-২০১২:   Draft Contract যৌথভাবে পেট্রোবাংলা এবং Gazpromপ্রতিনিধি কর্তৃক অনুস্বাক্ষর করা হয়।

 

০২-০২-২০১২:    অনুস্বাক্ষরকৃত চুক্তিপত্রটি আইন বিশেষজ্ঞ কর্তৃক মতামত  গ্রহণ করা হয়।  

 

০৭-০২-২০১২:   Gazpromএর নিকট আইন বিশেষজ্ঞের মতামত প্রেরণ করা হয়।

 

০৯-০২-২০১২:   Gazpromএর নিকট হতে মতামত পাওয়া যায়।

 

২২-০২-২০১২:   Draft Contract বাপেক্স বোর্ডকে অবহিত করা হয়। 

 

২৩-০২-২০১২:   Gazpromকর্তৃক পুনরায় Draft Contract টি Annexure সহ পেট্রোবাংলা বরাবরে প্রেরণ করা হয়। 

 

০৬-০৩-২০১২:  বাপেক্স কর্তৃক Gazpromহতে প্রাপ্ত চুক্তি পত্রটির উপর মতামত পেট্রোবাংলা বরাবরে প্রেরণ করে। যা গত    ২৩-০৩-২০১২ তারিখে Gazpromবরাবরে প্রেরণ করে।

০৮-০৩-২০১২:    পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান ও পরিচালকবৃন্দ এবং এসজিএফএল, বিজিএফসিএল এবং বাপেক্স এর সংশ্লিস্ট কমিটিবৃন্দের সাথে আইনজ্ঞের মতবিনিময় ২৬-০২-২০১২ তারিখে অনুষ্ঠিত হয় যার প্রেক্ষিতে আইনজ্ঞ কর্তৃক মতামত প্রেরণ।    

২৮-০৩-২০১২:  Gazpromএর নিকট হতে মতামত পাওয়া যায়।

০৩-০৪-২০১২:    খসড়া চুক্তিপত্র চূড়ান্তকরণ ও স্বাক্ষরের বিষয়ে পেট্রোবাংলা হতে সম্মতি কামনা করে পত্র প্রেরণ করা হয়।

০৯-০৪-২০১২:    চুক্তি চূড়ান্তকরণ ও স্বাক্ষরের বিষয়ে সরকারের অনুমোদন প্রদান করা হয়।

১৫-০৪-২০১২:   গ্যাস উন্নয়নের তহবিলের অর্থায়নে বাপেক্স এর ৫টি কূপ খননের বিষয় ডিপিপি মন্ত্রণালয় কর্তৃক অনুমোদিত হয়।

২৫-০৪-২০১২:   চূড়ান্তকৃত চুক্তিপত্রটি বাপেক্স বোর্ড কর্তৃক অনুমোদন প্রদান করা হয়।

২৬-০৪-২০১২:    Gazpromএর সাথে চুক্তি স্বাক্ষর করা হয়।  

০৮-০৫-২০১২:   চুক্তিপত্রটি এনবিআর (NBR) কর্তৃক Vetting এর জন্য পত্র প্রেরণ করা হয়।  

০৯-০৫-২০১২:   Performance Guarantee (PG) প্রদানের জন্য Gazpromবরাবরে পত্র প্রেরণ করা।

০৮-০৮-২০১২:   Commencement Date for the Project (Gazprom)বরাবরে পত্র প্রেরণ করা।

 

(বাপেক্স থেকে সংগৃহিত)